1. admin@ritekrishi.com : ritekrishi :
  2. ritekrishi@gmail.com : ritekrishi01 :
বাড়ছে ভার্মি কম্পোস্ট সারের ব্যবহার, কমছে উৎপাদন খরচ - Rite Krishi
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন

বাড়ছে ভার্মি কম্পোস্ট সারের ব্যবহার, কমছে উৎপাদন খরচ

  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২২
  • ৪৬ পড়া হয়েছে

সাতক্ষীরার তালায় কৃষকেরা নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে রাসায়নিক সারের পরিবর্তে এখন ভার্মি কম্পোস্ট সার ব্যবহারের দিকে ঝুঁকছেন। এতে রাসায়নিক সার ব্যবহারের প্রবণতা যেমন কমছে, তেমনি সাশ্রয় হচ্ছে ফসলের উৎপাদন খরচ। কৃষকদের জৈব সারের ব্যবহার ও উৎপাদন ছড়িয়ে দিতে উদ্বুদ্ধ করছে কৃষি বিভাগ।

তালা উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গত অর্থবছরে তালা উপজেলায় ৪০ জন খামারিকে ভার্মি কম্পোস্ট সারের প্রদর্শনী দেওয়া হয়েছে। উপজেলায় ছোট-বড় আকারে প্রায় ১ হাজার ২০০ জন ভার্মি কম্পোস্ট সার উৎপাদনকারী রয়েছেন। তাঁরা উপজেলায় সারের চাহিদা পূরণ করে বাইরেও বিক্রি করছেন।
শিবপুর গ্রামের ভার্মি কম্পোস্ট সার উৎপাদনকারী মোড়ল আব্দুল মালেক বলেন, ‘আমি ২০১৩-১৪ সাল থেকে জৈব সার উৎপাদন করছি। আমার খামার থেকে প্রতি মাসে প্রায় ১০ টন সার বের হয়। এ সার ব্যবহার করে একদিকে কৃষকেরা লাভবান হচ্ছেন, অন্যদিকে স্বাবলম্বী হচ্ছেন আমার মতো খামারিরা।’
মো. আব্দুল আজিজ বিশ্বাস নামে আরেকজন বলেন, ‘২০১৮ সালে একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার সহায়তায় সর্বপ্রথম আমি ও আমার স্ত্রী সালমা বেগম কেঁচো সার উৎপাদনের কাজ শুরু করি। তখন আমাদের অনেক অভাব ছিল। এই সার উৎপাদন ও বিক্রি করে বর্তমানে আমাদের সচ্ছলতা ফিরে এসেছে। আমার খামার থেকে প্রতি দেড় মাসে প্রায় ১৫ টন ভার্মি কম্পোস্ট বের করা হয়। এই সার দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলে যাচ্ছে। দিন যত যাচ্ছে, ভার্মি কম্পোস্টের চাহিদা তত বাড়ছে। সরকারি বা বেসরকারি সহযোগিতা পেলে আমার মতো খামারিরা ভার্মি কম্পোস্ট উৎপাদন করে ভালো ফল পাবে।’ আজিজ বিশ্বাসের স্ত্রী সালমা বেগম বলেন, ‘কেঁচো সার আমার পরিবারের ভাগ্য বদলে দিয়েছে। সারের পেছনে অনেক খাটাখাটনি করা লাগছে আমাদের। কিন্তু সব সময় চেষ্টা করছি ভালো সার তৈরি করার। এই কেঁচো সার থেকে এখন গরু-ছাগলের ছোট একটা খামারও করেছি আমরা।’
তালার সবুজ বাংলা সিআইজি কৃষক সমবায় সমিতির কোষাধ্যক্ষ মো. রফিকুল ইসলাম জানান, তাঁদের সমিতির সদস্যরা নিজেদের জমিতে এই কেঁচো সার ব্যবহার করেন। ভার্মি কম্পোস্ট ব্যবহারে তাঁদের ফলন ভালো হয়। এটি রাসায়নিক সারের মতো ব্যয়বহুল নয়। অন্যদিকে, ফলন ভালো হওয়ায় এই সার ব্যবহারে কৃষকেরা আগ্রহী হচ্ছেন।

এ বিষয়ে তালা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাজিরা খাতুন বলেন, ভার্মি কম্পোস্ট জৈব সার নতুন এক সম্ভাবনার নাম। গোবর থেকে কেঁচোর মাধ্যমে উৎপাদিত এই সার কৃষিজমির উর্বরতা বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। ভার্মি কম্পোস্ট সার ব্যবহার ও উৎপাদনে উৎসাহী হচ্ছেন কৃষকেরা। কৃষি অফিস থেকেও তাঁদের সার্বিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।

সুত্র: আজকের পত্রিকা

সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Error Problem Solved and footer edited { Trust Soft BD }
More News Of This Category
Web Design By Best Web BD